সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৭:০০ অপরাহ্ন

স্বাগতমঃ-
দৈনিক টেকেরহাট পত্রিকার ওয়েব সাইটে আপনাকে স্বাগতম মাদারীপুর এবং পার্শ্ববর্তী জেলার সংবাদ পেতে আমাদের সাথেই থাকুন।
সর্বশেষ সংবাদঃ-
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে মাদারীপুর জেলা আওয়ামীলিগের বর্ধিত সভা সম্পন্ন । রাজৈরে কলেজ শিক্ষকের উপর হামলাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে মানববন্ধন মাদক নির্মূল না হওয়া পর্যন্ত যুদ্ধ চলবে শিবচরে আনন্দ র‌্যালী ও আলোচনা সভা মাদারীপুরে ট্রাকের চাপায় শিশু নিহত মাদারীপুরে আনন্দ র‌্যালী ও আলোচনা সভা মাদারীপুরে র‌্যাব ৮ এর অভিযানে বিপুল পরিমান মাদকসহ ওয়েলকাম পার্টির এক সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার বাংলাদেশ উন্নয়নশীল রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান উপলক্ষে,রাজৈরে বর্ণাঢ্য আনন্দ র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত (ভিডিও সহ) স্বল্পোন্নত দেশের স্ট্যাটাস হতে বাংলাদেশের উত্তরনের যোগ্যতা অর্জনের ঐতিহাসিক সাফ্যল্য নিয়ে জেলা প্রশাসনের সংবাদ সম্মেলন (ভিডিও সহ) শিবচরে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের অপরাধে ৫ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদন্ড, ৪ টি ড্রেজার ধ্বংশ করেছে ভ্রাম্যমান আদালত
মরন ব্যাধি ক্যান্সারের ডাক্তার সুরেশ এইচ আদভানি

মরন ব্যাধি ক্যান্সারের ডাক্তার সুরেশ এইচ আদভানি

FB_IMG_1477684856832

ই.এইচ ইমনঃ প্রতিদিন মরন ব্যাধি ক্যান্সারে মারা যাচ্ছে বাংলাদেশের অসংখ্য মানুষ । যদিও বাংলাদেশে বর্তমানে গড়ে উঠেছে কয়েকটি হাসপাতাল । তারপরও বাংলাদেশের রোগীরা বা তাদের আত্মীয় স্বজনরা আস্থা পাচ্ছেনা এদেশে চিকিৎসা করাতে । বেশীর ভাগ রোগীরা চিকিৎসার জন্য ঝুকছে আমাদের প্রতিবেশী বন্ধু দেশ ইন্ডিয়ার মুম্বাইয়ে । মুম্বাইয়ে গড়ে উঠেছে ক্যান্সারের অসংখ্য হাসপাতাল । আমার নিজের অভিজ্ঞতার থেকে বলছি । বিস্তারিত ভাবেই বলি । এবছরের আগষ্ট মাসে ফোন পাই আমার ফুফা শ্বাশুরীর ছেলে শাওনের । সে আমাকে ফোনে জানায় আব্বুর ক্যান্সার রোগ হয়েছে । সে এখন ঢাকা মহাখালী ক্যান্সার হাসপাতালে চিতিৎসাধীন । আমি দেরী না করে তাকে দেখার জন্য পরের দিন ঢাকা চলে গেলাম । গিয়ে দেখি ফুফা শ্বশুরের শারীরিক অবস্থা খারাপ । ডাক্তার সঠিকভাবে বলতে পারছেনা কি হয়েছে । একবার বলে ক্যান্সার মাথায় হয়েছে । আবার জানায় বুকে হয়েছে । এসব জানতে পেরে আমার ভালো লাগেনি । শাওনকে বল্লাম তাড়াতাড়ি পাসপোর্ট করো ইন্ডিয়াতে চিকিৎসা করাবো । যেই কথা সেই কাজ । চলে আসলাম তাকে নিয়ে মুম্বাইতে । আসার পর আরেক সমস্যার সম্মুখীন হলাম । সবাই বলে টাটা হাসপাতাল ভাল । আমার শ্বশুর টাটা ছাড়া অন্য কোন হাসপাতালে চিকিৎসা করাবেনা । গেলাম টাটা হাসপাতালে । যাওয়ার পর বিশাল এক ইতিহাস । যাওয়ার পর একজন জানালো টাটায় চিকিৎসার রেজিষ্ট্রেশন ফি জমা দিতে হবে প্রথমে ৫০ হাজার রুপী এবং পরে ২ লক্ষ ৫০ হাজার রুপী জামানত । তাতেই রাজী হয়ে গেলাম । ফরম নিলাম । ফরম পূরনও করলাম । কিন্তু টাটার ব্যবস্থাপনা দেখে ভালো লাগলো না । বের হয়ে আসলাম টাটা থেকে । রাস্তা দিয়ে হাঁটছি আর ফুফাকে বলছি, মুম্বাই যখন এসেছি আপনার চিকিৎসা করেই তবে ফিরবো । রাস্তায় চট্রগ্রামের এক ভাইর ( নাম ঠিক মনে নেই ) সাথে দেখা হল । সে জানালো টাটায় চিকিৎসা করাবেন দুই মাসেও বাড়ি যেতে পারবেন না । দেখেন ডাক্তার আদভানি উনি কোথায় আছে ? তাকে দেখান । হঠাৎ আমার মনে পরেছে একদিন গুগোল সার্সে দেখেছিলাম । তারপর পকেট থেকে স্মার্ট ফোন বের করে সার্স দিলাম এবং তার সম্পর্কে কয়েকটি লেখা পড়লাম । পড়ে মনে হল সে এক জন ডাক্তার নয় শুধু আল্লাহ পরে ক্যান্সার রোগীদের জন্য জীবনদূত । তারপরও কোলকাতার এক বাংগালী বাবুকে জিজ্ঞাসা করলাম সুরেশ এইচ আদভানি ডাক্তার কেমন ? সে জানালো তার চেয়ে বড় ডাক্তার আছে বলে আমার জানা নেই । এর পর অপেক্ষা না করে নেট থেকে তার ঠিকানা নিয়ে পৌঁছে গেলাম চেম্বারে । চেম্বারে গিয়ে তাদের প্রতি ধারনা আরও পাল্টে গেল । ডাক্তারের কাষ্টমার রিলেশন ম্যানেজার উষমা রভজানি নামে এক আপু আমাদের সকল প্রকার তথ্য দিয়ে সহায়তা করলো । প্রথমে রেজিষ্ট্রেশন ফি দিতে হল ৯ শত রুপী । যে কথা আমার মনে থাকতে বলে নিই । তাহলো ডাক্তার বাংলাদেশীদের অগ্রাধিকার দিয়ে থাকে । তাছাড়া চিকিৎসা খরচ অনেক কম রাখেন । প্রথমে মিষ্টি হাসি দিয়ে সবার সাথে কথা বলেন । মনে তার সাথে কথা বলার সময় রোগ অর্ধেক কমে যায় । রোগী দেখার পর ঔষধ কেনার সময় সহায়তা করে । বাজার মূল্যের চেয়ে অর্ধেক মূল্যে ঔষধ কেনার ব্যাবস্থা করে । এছাড়া মুম্বাই না থেকে কি ভাবে বাংলাদেশে এসে চিকিৎসা নিবে তার সুব্যবস্থা করেন আঞ্জু এবং রূপালী । তবে সার্বিক ভাবে কাজের ব্যাপারে ঊষমার তুলনা হয় না । চেম্বারে যত বাংলাদেশী এবং ইন্ডিয়ান রোগীদের সাথে কথা বলেছি সবার একই কথা আল্লাহ বা ভগবানের পর ডাক্তার সুরেশ এইচ আদভানি । ডাক্তারের চিকিৎসা গ্রহন করে আমার ফুফা শ্বশুর এখন আল্লাহ রহমতে অনেক সুস্থ ।

Suresh H Advani disease doctor dying of cancer

EH. Emonঃ Many people are dying of cancer death for every disorder. Although some hospitals have been developed in Bangladesh. However, the confidence of the patients or their relatives in the country are not receiving treatment. Concentrate for treatment of most patients in our neighbor country of India in Mumbai. Mumbai has developed numerous hospital cancer. I say from my own experience. Offering detailed way. In August of this year was the son of my uncle Shaon parent. He’s on the phone told me that she has cancer. He cititsadhina Mohakhali Cancer Hospital. I can not wait to see him the next day and went to Dhaka. My uncle went to see her father’s condition worse. The doctor could not say exactly what has happened. Once the cancer has in mind. According to the chest. I knew it was not good. `Surely a passport as soon as the animal shall Shaon India. That’s the job. He walked into Mumbai. After arriving, I was faced with another. Everyone in Tata Hospital. My father-in-Tata karabena than any other hospital. Tata went to the hospital. After a huge history. After the treatment, the registration fee must be submitted with a pointed tataya first two lakh 50 thousand to 50 thousand rupees, and then deposit Rs. So I agreed. Form auction. I fill in the forms. But I did not get to see Tata management. Went out from Tata. Phuphake walking down the street and say, when I came to Mumbai, then return it to your animal. Bhai streets of Chittagong (can not remember name) is met. He told tataya medicine will not be able to go homle in two months. Advani where he sees the doctor? Show him. Suddenly I saw you wearing the day search Google. Smart phone from his pocket and took out some of his writings, and was made search. I think he’s one of the doctors is not just for cancer patients after God jibanaduta. However, one of the prestigious Kolkata Suresh Babu H Advani asked the doctor how? He told his doctor that there are more than I do not know. Without waiting for her address to the net after the chamber reached. The chamber also changed their ideas. She called the doctor’s Customer Relations Manager Ushma seemed to support us with information of all kinds. The registration fee is 9 hundred rupees. That seems to me to assume that. Bangladeshi doctor is a common priority. Moreover, while medical costs are much lower. First, talk to everyone with a smile. Speaking to her disease can be reduced by half. After buying medicine helps patients. More than half the cost of buying drugs on the market price system. Apart from Mumbai do not take the medicine at the Anju its planning and Rupali. However, the overall task is not to compare the Ushma. The Bangladeshi and Indian Chamber of patients talked to all have the same God, Allah or the doctor Suresh H Advani. My uncle-in-law received a doctor’s treatment by the grace of God is much healthier now.

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




উন্নয়ন সহযোগীতায়ঃ- সেভেন ইনফো টেক